ত্বকের যত্ন

গরমে তৈলাক্ত ত্বকের যত্ন নিবেন যেভাবে

তেলতেলে ত্বকের যত্নে করণীয়

গরমে আমাদের অনেক ঘাম হয় তারসাথে তৈলাক্ত ত্বক একটি অসস্তির বিষয়। মুখ তেলতেলে লাগছে, ব্রণ, হোয়াইট হেডস, ব্ল্যাকহেডসের উপদ্রবও শুরু হয়ে গেছে। তৈলাক্ত ত্বকে ময়লা, ধুলো এবং ডেড সেল খুব দ্রুত জমে ফলে ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণ হয়ে ব্রণ হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়। তাই সব সময় মুখ পরিষ্কার রাখা খুব জরুরি। বাড়িতে খুব সাধারণভাবেই নেওয়া যেতে পারে তেলতেলে ত্বকের যত্ন। চলুন দেখে নেওয়া যাক গরমে তৈলাক্ত ত্বকের যত্নে কিছু টিপস।

খাদ্যাভ্যাসে পরিবর্তন আনুন
যে কোন সমস্যার সমাধান ভেতর থেকেই হওয়া জরুরি। তৈলাক্ত ত্বকের সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে খাদ্যভাসে পরিবর্তন আনুন। সুষম খাদ্যাভ্যাস গড়ে তুলুন। অতিরিক্ত চর্বিজাতীয় খাবার খাবেন না। ভাজাপোড়া কম খাবেন। ছোট মাছ, শাকসবজি খাবার অভ্যাস গড়ে তুলুন। এগুলো ছাড়াও প্রতিদিন এই কাজগুলো করতে পারেন –

  • প্রচুর পানি পান করুন।
  • সকালে ঘুম থেকে উঠেই লেবুপানি পান করতে পারেন।
  • উঠতি বয়সীরা লেবুপানির সঙ্গে একটু মধুও যোগ করতে পারেন। (মধুতে এলার্জি না থকলে)
  • ফলের রসও পান করতে পারেন।

শসা
নিয়মিত শসার রস দিয়ে মুখ পরিষ্কার করলে ত্বকের তৈলাক্তভাব দূর হয়ে যায়। যখন শসা খাবেন তখন এর খোসা মুখে মেখে নিতে পারেন। অথবা  রস করে তাতে চালের গুঁড়া মিশিয়ে প্যাক বানিয়ে ব্যবহার করলেও ভালো ফল পাওয়া যায়। শসার রসে বেশন বা আটা মিশিয়ে পেস্ট বানিয়ে মুখে ও গলায় ব্যবহার করলে ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ে।

খাঁটি, বিশুদ্ধ মধু
ত্বকের যে কোন সমস্যা প্রতিকারেই মধুর তুলনা নেই। তেলতেলে ত্বক থেকে মুক্তি পেতে মুখে হালকা করে মধু মাখুন। ১০ মিনিট সময় ধরে রাখুন। তারপর কুসুম গরম জলে ধুয়ে ফেলুন। এতে ত্বক আর্দ্র থাকবে আর মুখের তেলতেলে ভাবও কমবে।

ডিমের সাদা অংশ ও লেবু
তৈলাক্ত ত্বকের যত্নে  ব্যাবহার করতে পারেন ডিমের সাদা অংশ ও লেবু দিয়ে বানানো মাস্ক এই পথ্য বহু পুরনো। ফেস মাস্ক যেভাবে বানাবেন –

১ টি ডিম থেকে সাদা অংশ আলাদা করে নিন সাথে ১ চা চামচ লেবুর রস মিশিয়ে নিন। এবার মিশ্রণটি মুখে লাগিয়ে নিন। শুকিয়ে যাওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করুন তারপর কুসুম গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

অথবা,

ডিমের সাদা অংশ মুখে লাগিয়ে এর ওপর টিস্যু পেপার দিয়ে ১০ মিনিট রেখে দিন। শুকানো হয়ে গেলে ত্বক পরিষ্কার করে নিলেই ত্বকের লোমকূপ বড় দেখানোর সমস্যা দূর হবে। সতেজ অনুভব করবেন।

ঘৃতকুমারী বা অ্যালোভেরা
বাড়িতে অ্যালোভেরা গাছ থাকলে ভালো, না হলে দোকান থেকে কেনা জেলও চলবে। মুখে অ্যালোভেরা জেল লাগিয়ে শুকোনো পর্যন্ত অপেক্ষা করুন। যদি অ্যালোভেরা নিয়ে এলার্জির শঙ্কা থাকে তবে নিজের হাতে প্রয়োগ করুন প্রথমে। ২৪-৪৮ ঘণ্টার ভেতরে কোনও প্রতিক্রিয়া না হলে নিশ্চিন্তে ব্যবহার করুন।

তাজা টমেটো
টমেটোতে থাকা অ্যাসিডই ত্বকের বাড়তি তেল শোষণ করে নেবে। মুখের বাড়তি তেল শুষে নিয়ে ব্ল্যাকহেডস, ব্রণ দূরে দূর করতে টমেটো মাস্ক খুবই কার্যকরি। টমেটোর মাস্ক বানাবেন যেভাবে –

একটা মাঝারি টোমাটো আধখানা করে কেটে চটকে রসটা বের করে নিন। তুলোয় করে সারা মুখে মাখুন। ১০-১৫ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে একদিন করলেই দারুণ ফল পাবেন।

অথবা,

১ চা চামচ চিনি ও ১ টি টমেটো রস করে নিন। তারপর ভালোভাবে মিশিয়ে নিয়ে মুখে গোল গোল করে মাখিয়ে নিন। ৫ মিনিট রাখুন তারপর কুসুম গরম পানিতে ধুয়ে ফেলুন। দেখবেন খুব সতেজ লাগছে।

লেবুর রস
১.
লেবুর রস, গোলাপজল আর গ্লিসারিন সমান পরিমাণে মিশিয়ে মুখে লাগান। 20 মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলবেন। ব্রণ, গরমের ফুসকুড়ি কমিয়ে ত্বক সুস্থ রাখার অব্যর্থ উপাদান এটি।

২.
মুলতানি মাটি, চন্দনের গুঁড়া, কাগজিলেবুর রস এবং সর তোলা দুধ বা টকদই একত্রে মিশিয়ে মুখে লাগিয়ে রাখতে পারেন ১০-১৫ মিনিট। এতে ত্বকের বাড়তি তেল ও ময়লা বেরিয়ে যাবে।

বি দ্রঃ সাধারণ পাতিলেবুর রস আপনার ত্বকের বাড়তি তেলাভাব কাটিয়ে তুলতে সাহায্য করে।  তবে কাগজিলেবুর রস সরাসরি ব্যবহার না করে এটিকে গোলাপজলের সঙ্গে মিশিয়ে নিয়ে তারপর ব্যবহার করুন। আর চন্দনের পরিবর্তে চাইলে ভিজিয়ে রাখা মসুরের ডাল বেটে নিয়ে ব্যবহার করতে পারেন।

মেকআপ হবে যেমন
গরম কালে ভারী মেকআপ করা উচিত নয়। এরফলে ত্বকের সমস্যা বাড়তে পারে। এই সময় কেবল হালকা ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করুন। এছাড়াও, ঘাম হলে রুমাল দিয়ে চাপ দিয়ে মুখ ঘষা বন্ধ করুন। এর ফলে ত্বক ক্ষতিগ্রস্থ হয়। অয়েলি স্কিনের জন্য ক্লিনজিং, টোনিং ও ময়েস্চারাইজিং নিয়মিত প্রয়োজন। এটাই প্রথম এবং গুরুত্বপূর্ণ শর্ত।

যে প্রসাধনীই ব্যবহার করুন না কেন, তা হতে হবে ওয়াটার-বেসড বা পানিনির্ভর। অর্থাৎ অয়েল-বেসড বা তেলের প্রাধান্য বেশি এমন কোনো প্রসাধনী ব্যবহার করা যাবে না। ফাউন্ডেশন লাগাতে হবে খুব কম। ফেসপাউডার লাগালে কোনো ক্ষতি নেই। এমন আইলাইনার লাগানো উচিত, যেন তা ভিজে গেলেও মুছে না যায়।

এছাড়াও যে কাজগুলো করতে পারেন

১.
এক চামচ বেসনের সঙ্গে অল্প হলুদের গুঁড়ো ও টকদই একসঙ্গে মিশিয়ে তা কিছুক্ষণ মুখে লাগিয়ে রাখতে হবে। এতে মুখের তৈলাক্তভাব দূর হবে।

২.
আপেলের রস ও লেবুর রস একসঙ্গে মিশিয়ে ১৫ মিনিট মুখে লাগিয়ে রেখে ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেললেই মিলবে সুফল।

৩.
বেসন অথবা মসুরের ডাল বাটার সঙ্গে টকদই, আমন্ড বাদাম, কমলালেবুর খোসা বাটা এবং নিমপাতা বাটা দিয়ে একটি প্যাক তৈরি করতে পারেন। এটি তৈরি করে ফ্রিজে রেখে কয়েক দিন পর্যন্ত ব্যবহার করতে পারেন। প্যাকটি প্রতিদিন মুখে লাগাবেন এবং ভেজা তোয়ালে দিয়ে মুছে নেবেন। মুখ ছাড়াও প্যাকটি শরীরের যেকোনো জায়গায় সাবানের পরিবর্তে ব্যবহার করতে পারেন। এ ছাড়া ১৫ দিন অন্তর ফেসিয়াল করাতে পারেন।

 

Show More

Leave a Reply

Your email address will not be published.